29.5 C
Chittagong
Tuesday, May 28, 2024
spot_img

পাট চাষিদের কণ্ঠে লোকসানের সুর

ডেস্ক নিউজ  :  সোনালি আঁশখ্যাত পাট তার সুদিন হারিয়েছে বেশ আগেই। গত কয়েক বছর ধরে পাটের আবাদ কিছুটা বেড়েছে  দেশের উত্তরাঞ্চলে।

তবে কৃষকের অভিযোগ পাটের কাঙ্ক্ষিত দাম মিলছে না কোনো বছর।  

ঐতিহ্যবাহী নওগাঁর আহসানগঞ্জ পাটের হাট। সপ্তাহে একদিন বৃহস্পতিবার এই হাট বসে। নওগাঁ ছাড়াও নাটোর ও জয়পুরহাটের চাষিরা আসেন এই হাটে পাট বিক্রি করতে। এক সময়ের বিশাল এই হাটের আয়তন কমেছে অন্তত চারগুণ।

হাটে পাট বিক্রি করতে আসা পাট চাষিরা জানান, বর্তমান বাজারে সব কিছুর উচ্চমূল্য। তাই পাট উৎপাদনে দিন দিন খরচ বেড়েই চলেছে। কিন্তু সেই অনুপাতে মিলছে না দাম।

পাট চাষিরা আরো বলেন, বাজারে জাত ও মানভেদে প্রতি মণ পাট বিক্রি হচ্ছে দুই হাজার থেকে ২২শ টাকা পর্যন্ত। তবে এই দামে চাষিদের অনেক লোকসান হচ্ছে। পাটের দাম সর্বনিম্ন ২৮শ থেকে তিন হাজার টাকা মণ বিক্রি হলে লাভের মুখ দেখা যাবে।

আত্রাই উপজেলার কৃষকরা জানান জমিতে হাল, সার, কীটনাশক সব মিলিয়ে এক মণ পাট উৎপাদনে খরচ পড়েছে গড়ে ১৯শ টাকা। এরপর এ বছর পাট পচানোর জন্য পানি পাওয়া যায়নি। এজন্য শ্রমিকের খরচ লেগেছে অনেক। প্রতিবছর এমনভাবে চলতে থাকলে মানুষ আবাদ বন্ধ করে দেবে।

অন্যদিকে চাষিদের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের কণ্ঠেও লোকসানের সুর। আহসানগঞ্জ হাটে আসা নাটোরের এক ব্যবসায়ী জানান, পাট বেচাকেনা করে আমাদের সুবিধা হচ্ছে না। নগদ টাকায় পাট কিনে মিলে দিতে হচ্ছে বাকিতে। আবার মিলাররা সময়মতো দিচ্ছে না টাকা। সব মিলিয়ে পাটের ব্যবসার অবস্থা খুব খারাপ। এই মুহূর্তে সরকারকে পাটের দিকে বাড়তি নজর দিতে হবে। তা না হলে পাট চাষ বন্ধ হয়ে যাবে।

পাট কারবারে গতি আনা ও দূষণ রোধে পন্যে পাটজাত মোড়কের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করে সরকার। কিন্তু এখনও বৃহত্তর চালকল সেক্টরসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে খুব একটা কার্যকর করা যায়নি সেই নির্দেশনা। মিলগুলোতে হরহামেশায় ব্যবহার হচ্ছে ক্ষতিকর প্লাস্টিক ব্যাগ। ব্যবসায়ীদের দাবি, প্লাস্টিক ব্যাগে খরচ অনেক কম। আবার পণ্যের মানও থাকে ভালো।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

0FansLike
3,912FollowersFollow
21,800SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles